ম্যাজিক গ্রোথ প্রযুক্তির ফলাফল

জনাব আরিফ খান বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি এর একজন কর্মকর্তা, একজন কৃষিবিদ এবং শখের বসে দীর্ঘ ১৬ বছর গবেষণার মাধ্যমে ২০০৬ সালে দেশের প্রেক্ষাপটে প্রথম একটা কার্যকর মিশ্র তরল সার উদ্ভাবন করতে সক্ষম হন। তার কাজ নিয়ে অনেকেই এখন আগ্রহী। যেমন দেখা যায়, তিনি লিখছেন -গত এক বছর ৪ মাস আগে অরকিড এবং ছাদ বাগানের বিভিন্ন গাছের উপরে ম্যাজিক গ্রোথ প্রযুক্তির বিষয়টি পরীক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করি। অরকিড এবং ছাদ বাগানের উপর পাতার মাধ্যমে পুষ্টি প্রদানের বিষয়টি অতিমাত্রায় কার্যকর হবার বিষয়টি আমি ভালো ভাবে জানতে পানি। কিন্তু কেউ কেউ ব্যতিক্রমধর্মী কিছু পরীক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। চট্রগ্রামের একজন এ্যকুয়া প্লান্ট এর উপরে পরীক্ষা করেন। আর ঢাকার তারিকুজ্জামান তপু নামক এক ভদ্রলোক ছাদে পদ্ম ফুলের উপরে ব্যবহার করেন। গত পরশু দিন এ্যকুয়া প্লান্টের ছবি দিয়ে পোষ্ট করার পরে গত কালকে তপু সাহেব পদ্ম গাছের উপরে পরীক্ষার ফলাফল উপস্থাপন করে দেন। আমি দেখছি আমার উদ্ভাবিত ম্যাজিক গ্রোথ প্রযুক্তির বিষয়টিকে মানুষ নিজেদের চিন্তা ভাবনা প্রয়োগের মাধ্যমে আরও নতুন নতুন বিষয়ের উপরে পরীক্ষা উদ্যোগ গ্রহণ করছেন এবং সফলতা পাচ্ছেন। আমি এজন্য আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি। তপু সাহেব মোট ৮টি ছবি পোষ্ট করে কিছু বক্তব্য উপস্থাপন করেন যা নীচে উপস্থাপন করলাম।
“১-৪ নং ছবি গুলো ম‍্যাজিক গ্রোথ দেওয়া পদ্ম গাছ এবং ৫ থেকে ৮ নং ছবি গুলো ম‍্যাজিক গ্রোথ না দেওয়া পদ্ম গাছ এখন স‍্যার আপনি এখন বলুন তফাৎ কি। আপনার ম‍্যাজিক গ্রোথ বাজারজাত করুন আমাদের ছাদের গাছের জন্য বেশ উপকারী হবে। আপনার কাছ থেকে এই ভাবে আর কতদিন নিবো যেখানে আপনার ও পাঠানো সমস্যা আমাদের ও বার বার চাওয়া খারাপ লাগে।”

নীচে বাম পাশের ছবিটি ম্যাজিক গ্রোথ ব্যবহৃত বালতির গাছ আর ডান দিকেরটি কন্ট্রোল অর্থাৎ ম্যাজিক গ্রোথ ব্রবহার করা হয়নি।

পদ্ম গাছের উপরে ম্যাজিক গ্রোথ

পদ্ম গাছের উপরে ম্যাজিক গ্রোথ

পদ্ম গাছের উপরে ম্যাজিক গ্রোথ ছাড়া

পদ্ম গাছের উপরে ম্যাজিক গ্রোথ ছাড়া

তিনি তার ফেসবুক প্রফাইলে লেখেন, উদ্ভাবনটি স্বীকৃতির জন্য আমি বিষয়টি যথাযথভাবেই রাষ্ট্রের সর্বোচচ পর্যায়কে অবহিত করেছি। আমি দেশের কয়েক হাজার চাষিকে /উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাকে ডিএইর মাধ্যমে এবং নিজে সম্পৃক্ত করে পরীক্ষা করেছি। ফলাফল প্রতি ক্ষেতেই অতিমাত্রায় পজেটিভ। উদ্ভাবনের বিষয়টি স্বীকৃতির জন্য কৃষি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ৭/২/১২ তারিখে অধিকাংশ সেক্টর প্রধান বা তাদের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে উপস্থাপন করি। নিজস্ব গবেষণার অংশ হিসাবে কর্মপরিকল্পনাভূক্ত করে গবেষণা করে ফলাফল উপস্থাপনের জন্য বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটকে মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এবিষয়ে একাধিক তাগাদা পত্রও প্রদান করা হয়েছে। যদিও ফলাফলটি এখনও উপস্থাপিত হয়নি। আমার উদ্ভাবিত ম্যাজিক গ্রোথের বিষয়টি ২০১২ সাল থেকে অদ্যাবধি পর্যন্ত সকল কৃষি সচিব মহোদয়গণ অবহিত। মাননীয় কৃষিমন্ত্রী মহোদয়ের নিকটে দুই বার উপস্থা করেছি (৩০/৩/১১ এবং ৩০/১২/১৩ তারিখ)। এজন্য আমি এক্স কৃষি সচিব ড. এস এম নাজমুল ইসলাম মহোদয়ের নিকট সবিশেষ কৃতজ্ঞ। উদ্ভাবনের বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের গভর্নেন্স ইনোভেশন ইউনিট, এটুআই ও অবহিত রয়েছে এবং যথাযথ নির্দেশনাও প্রদান করেছেন। সকল ক্ষেত্রেই আমি উদ্ভাবনের স্বীকৃত প্রত্যাশা করেছি।

বর্তমানে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী মিশ্র তরল সারের আমদানী এবং বানিজ্যিক উৎপাদন এবং বিপণনের বিষয়ে ২০১৩ সাল থেকে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আমি শুধু মাত্র ম্যাজিক গ্রোথ এর ব্যবহারের কার্যকারিতার বিষয়টি আরও কিভাবে উন্নত করা যায় সেটা নিয়েই সম্পূর্ণ নিজ খরচে সৌখিনভাবে গবেষণা করছি।

ছাদ বাগানে এবং অরকিডের উপরে ম্যাজিক গ্রোথের এতবেশী কার্যকারিতা পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, ম্যাজিক গ্রোথ পাবার জন্য সারা দেশের মানুষের মধ্যে একটা ক্রেজ তৈরী হয়ে গেছে। এবিষয়টিকে কাজে লাগিয়ে আজকে কিছু অসাধু মানুষ ম্যাজিক গ্রোথ নাম ব্যবহার করে কি করছে তা আপনাদের সদয় অবগতির জন্য উপস্থাপন করলাম। এই পোষ্টটি শেয়ার করে দেবার জন্য অনুরোধ রইল।

3 Comments

    Leave a Reply

    Logo
    Reset Password
    Compare items
    • Total (0)
    Compare
    0