উন্নত পদ্ধতিতে মুড়ি ইক্ষুর চাষ

উন্নত পদ্ধতিতে মুড়ি ইক্ষুর চাষ

মূল আখ কাটার পর মাটিতে অবস্থিত মোথায় অবস্থিত চোখ থেকে জন্মানো ইক্ষুকে মুড়ি ইক্ষু চাষ বলে। মুড়ি ইক্ষু চাষের ক্ষেত্রে মূল ইক্ষু কাটার সময়, পারিপার্শিক তাপমাত্রা এবং মাটিতে রসের পরিমান অত্যন্ত গুরুত্ব¡পূর্ণ। আমাদের দেশে ডিসেম্বর-জানুয়ারী মাসে সবচেয়ে বেশী শীত থাকে এবং তাপমাত্রা কম থাকে। ফলে মুড়ি ইক্ষু চাষ করতে হলে উল্লেখিত সময়ের পূর্বে (নভেম্বর) অথবা পরে (ফেব্রুয়ারী) মূল ইক্ষু কাটতে হবে।

বাংলাদেশের ইক্ষু বা আঁখ

বাংলাদেশের ইক্ষু বা আঁখ

মুড়ি ইক্ষু চাষের গুরুত/সুবিধা

মুড়ি ইক্ষু আগাম পরিপক্ক হয় তথা জীবনকাল সংক্ষিপ্ত হয়
মুড়ি ইক্ষু উৎপাদন খরচ মূল ইক্ষুর তুলনায় ২৫-৩০% কম হয় (বীজ প্রয়োজন হয় না, জমি ক্সতরীর খরচ কম)
মুড়ি ইক্ষুতে চিনি ও গুড় আহরণের পরিমান বেশী (প্রায় ১%)

 

মুড়ি ইক্ষু চাষের অসুবিধা

মুড়ি ইক্ষুর শিকড় বেশী গভীরে প্রবেশ করে না বিধায় তুলনামূলকভাবে কম খরা সহিষ্ণু
তুলনামূলকভাবে নাইট্রোজেনসহ অন্যান্য পুষ্টি উপাদান কম গ্রহন করতে পারে
ঝড়-বৃষ্টিতে হেলে পড়ার সম্ভাবনা থাকে
মুল ইক্ষুর তুলনায় ইক্ষু কান্ডে আঁশের

 

মুড়ি ইক্ষুর ফলন কম হওয়ার কারণ

ক্স মুড়ি ইক্ষু চাষে উপযুক্ত জাত নির্বাবচন না করা
ক্স মুড়ি ইক্ষু চাষে চাষীর অনিহা
ক্স যথাযথ ব্যবস্থাপনা অনুসরণ না করা
ক্স মুড়ি ইক্ষু চাষের জন্য মূল ইক্ষু একসাথে কর্তন করতে না পারা

 

ক্স মূল ইক্ষু কাটার পর মাটি শক্ত থাকায় ভালভাবে জমি প্রস্তুত না করা
ক্স মুড়ির জন্য মূল ইক্ষু সময়মত কর্তন করতে না পারা

মুড়ি ইক্ষুর সন্তোষজনক ফলন পেতে হলে নিম্নলিখিত বিষয়গুলির প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে ঃ
ক্স মুড়ি ইক্ষুর জন্য উপযোগী জাত নির্বাচন করা
ক্স প্রয়োজনীয় সংখ্যক ইক্ষু ঝাড় আছে এমন জমিতে মুড়ি ইক্ষু চাষ করা
ক্স যথাসময়ে ভাল মুড়ি ইক্ষুর জন্য জমির সম্পূর্র্ণ মূল ইক্ষু একসাথে কাটতে হবে
ক্স মূল ইক্ষু কাটার ৫/৭ দিনের মধ্যে মোথা ছেটে ও জমি পরি¯‥ার করে দিতে হবে
ক্স সুষম সার প্রয়োগ করতে হবে
ক্স ৯০-১২০ দিন আগাছা মুক্ত রাখলে ফলন ভাল হয়
ক্স সমন্বিত পদ্ধতিতে রোগ ও পোকা দমন করতে হবে

মুড়ি ইক্ষুর উপযোগী জাত ঃ মুড়ি ইক্ষু চাষের জন্য জাত নির্বাচনে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি লক্ষ্য রাখতে হবে-
ক্স মোটা ইক্ষুর তুলনায় চিকন ও মধ্যম মোটা জাতের ইক্ষু মুড়ি চাষের জন্য উত্তম
ক্স অঙ্কুরোদগম হার বেশী এমন ইক্ষু জাত মুড়ি চাষের জন্য নির্বাচন করতে হবে
ক্স মোথা কম নষ্ট হয় এমন জাত নির্বাচন করতে হবে
ক্স গভীর মূল বিশিষ্ট ও খরা সহিষ্ণু জাত হতে হবে

মুড়ি ইক্ষুর উপযোগী জাতসমূহ নিম্নরূপ

ঈশ্বরদী ২/৫৪, ঈশ্বরদী ২০, ঈশ্বরদী ২১, ঈশ্বরদী ২৮, ঈশ্বরদী ২৯, ঈশ্বরদী ৩০, ঈশ্বরদী ৩১, ঈশ্বরদী ৩২, ঈশ্বরদী ৩৪, ঈশ্বরদী ৩৬, ঈশ্বরদী ৩৭, ঈশ্বরদী ৩৮, ঈশ্বরদী ৩৯, ঈশ্বরদী ৪০ এবং বিএসআরআই আখ ৪৩।

মুড়ি ইক্ষু চাষের জন্য মূল ইক্ষু কর্তনের উপযুক্ত সময় ঃ মুড়ি ইক্ষু চাষের উপর মূল ইক্ষু কর্তন সময়ের প্রভাব অত্যন্ত গুরুত্ব¡পূর্ণ। অত্যন্ত শীত (মধ্য ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারী) এবং অধিক গরম সময় (এপ্রিল থেকে পরবর্তী) মূল ইক্ষু কর্তন করলে মুড়ি ভাল হয় না। অক্টোবর-নভেম্বর এবং ফেব্রুয়ারী-মার্চ মাসে মূল ইক্ষু কর্তন করলে মুড়ি ভাল হয়।

মোথা ছাটা/পরিবার ঃ

ইক্ষু কাটার পর ৫/৭ দিনের মধ্যে মোথা মাটির সমান্তরাল করে ছেটে দিতে হবে যাতের মাটির নিচের অংশে অবস্থিত চোখগুলো গজাতে পারে। মোথার পুরাতন শিকড়গুলো কেটে দিলে নতুন শিকড় তাড়াতাড়ি গজায় এবং খাদ্য উপাদান সহজে গ্রহণের ফলে কুশির সংখ্যা বেশী হয়।

জমি চাষ ঃ মোথা ছাটার পর দু’সারি ইক্ষুর মধ্যবর্তী জায়গা লাঙ্গল অথবা কোদাল দিয়ে চাষ অথবা কুপিয়ে মাটি আলগা করে ঝুরঝুরে করে দিতে হবে।

We will be happy to hear your thoughts

Leave a Reply

শখের কৃষি
Logo
Reset Password
Shopping cart